Saturday, February 4, 2023
বাড়িNationalভারত সফর থেক বাদ, মোমেনের মন্ত্রিত্ব থাকবে কি না সে প্রসঙ্গে সোজাসাপ্টা...

ভারত সফর থেক বাদ, মোমেনের মন্ত্রিত্ব থাকবে কি না সে প্রসঙ্গে সোজাসাপ্টা উত্তর কাদেরের

Ads

সম্প্রতি পররাষ্টমন্ত্রী আব্দুল মোমেনকে নিয়ে নানা নেতিবাচক কথা উঠছে রাজনৈতিক অঙ্গনে এবং সেই সাথে দেখা যাচ্ছে এই বিষয়টি নিয়ে বিরিধী দলের নেতাকর্মীরাও নানা মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছে। এবং এই ঘটনার পর আরো একটি বিষয় সবার দৃষ্টি কেড়েছে আর সেটি হচ্ছে ভারত সফর থেকে পররাষ্টমন্ত্রীর ছিটকে যাওয়া।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তিনি (মোমেন) কিছুটা অসুস্থ। তার মন্ত্রিত্ব থাকবে কি না, সেটা প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নেবেন। অন্য কারও কিছু বলার নেই। বললে সেটা হবে অতিকথন।’
পররাষ্ট্রমন্ত্রী সব সময় প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হবেন এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেছেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের মন্ত্রিত্ব থাকা না থাকার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সচিবালয়ে বুধবার বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএসআরএফ) আয়োজিত সংলাপে এসব কথা বলেন কাদের।

সংলাপে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ নেতা বলেন, ‘তিনি (মোমেন) কিছুটা অসুস্থ। তার মন্ত্রিত্ব থাকবে কি না, সেটা প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্তে নেবেন।

‘অন্য কারও কিছু বলার নেই। বললে সেটা হবে অতিকথন।’

মন্ত্রিসভার সদস্যদের মধ্যে সম্প্রতি তুমুল আলোচিত পররাষ্ট্রমন্ত্রী। একের পর এক বেফাঁস মন্তব্যে ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষ নেতৃত্ব থেকে অসন্তোষের বিষয়টিও প্রকাশ পায়। সম্প্রতি তিনি শেখ হাসিনার সরকারকে টিকিয়ে রাখতে ভারতবর্ষের সরকারকে অনুরোধ জানিয়েছেন বলে বক্তব্য দেয়ার পর সেটি নিয়ে তুমুল সমালোচিত হন।

শেখ হাসিনার ভারত সফর থেকে মন্ত্রী বাদ পড়ে যাবেন, এমনটি ধারণায় ছিল না। কারণটা হলো সাধারণত রাষ্ট্রীয় সফরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সরকারপ্রধানের সঙ্গেই থাকেন।

গত সোমবার শেখ হাসিনা দেড় শতাধিক সফরসঙ্গী নিয়ে ভারতযাত্রার সময় মোমেন যাননি। দুই দেশের মধ্যকার অমীমাংসিত নানা সমস্যার সমাধানে দুই দেশের সরকারের কী চিন্তা, এ নিয়ে যখন সংবাদ বা আলোচনা বেশি হওয়ার কথা, তখন চর্চাটা হচ্ছে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর না যাওয়া নিয়ে।

আগের দিন মন্ত্রী যখন এই সফর নিয়ে ব্রিফিং করছিলেন, তখন তিনি জানিয়েছেন, তিনিও যাচ্ছেন প্রতিবেশী দেশটিতে, তবে সেটির ব্যতিক্রম হলো কেন, এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে কোনো ব্যাখ্যা দেয়া হয়নি।

গত ১৮ আগস্ট পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের দুই দিন পর ধানম‌ন্ডি ৩২ নম্বরে ১৫ আগস্ট স্মরণে আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিকবিষয়ক উপকমিটির অনুষ্ঠান শেষে এ বিষয়ে সাংবা‌দিক‌রা প্রশ্ন করেন দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রহমানকে। উত্তরে তিনি বলেন, ‘পররাষ্ট্রমন্ত্রী আওয়ামী লীগের কেউ নন।’

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সর্বশেষ কমিটিতে রয়েছেন ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

চট্টগ্রামে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের পর ২১ আগস্ট তার পদত্যাগ চেয়ে রেজিস্ট্রি ডাকযোগে আইনি নোটিশ পাঠান এরশাদ হোসেন নামের এক আইনজীবী।

নোটিশে বলা হয়, ‘গত ১৮ আগস্ট চট্টগ্রামে জন্মাষ্টমীর এক অনুষ্ঠানে আপনি বলেছেন, ভারতের কাছে আপনি অনুরোধ করেছেন, যেকোনো মূল্যে শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রাখা দরকার। আপনার এ বক্তব্যের মাধ্যমে আপনি আপনার শপথ ভঙ্গ করেছেন। আপনি সংবিধানকে লঙ্ঘন করেছেন; দেশের সার্বভৌমত্বের ওপর আঘাত করেছেন।

‘এ অবস্থায় নোটিশপ্রাপ্তির ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে আপনার পদ থেকে পদত্যাগ করতে হবে। অন্যথায় আপনার বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনগত পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হব।’

উল্লেখ্য, রাজনৈতিক অঙ্গনে পররাষ্টমন্ত্রী আব্দুল মোমেনের বক্তব্য নিয়ে বেশ সমালোচনা উঠেছিল কিছুদিন আগে। তিনি তার এক বক্তব্যে বলেছিলেন দ্রব্যমুল্যের যে দাম সেই প্রেক্ষিতে অন্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশের মানুষ বেহেস্তে আছে

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments