Monday , June 24 2024
Home / International / ভাঙল দীর্ঘ ১৭ বছরের সংসার, খুশিতে ডিভোর্স পার্টি দিলেন সোনিয়া

ভাঙল দীর্ঘ ১৭ বছরের সংসার, খুশিতে ডিভোর্স পার্টি দিলেন সোনিয়া

বর্তমান সময়ে সমাজে বিবাহ বিচ্ছেদের ঘটনা নিত্য দিনের ঘটনায় পরিনত হয়েছে। বিশ্বের সকল দেশেই এই ঘটনা বিদ্যমান। তবে সম্প্রতি এক ব্যতিক্রমী ঘটনা ঘটেছে। দীর্ঘ ১৭ বছর পর বিবাহিত জীবনের বিচ্ছেদকে ঘিরে বিশাল পার্টির আয়োজন করলেন ডিভোর্স প্রাপ্ত নারী সোনিয়া গুপ্ত।

১৭ বছর পর বিবাহিত জীবনের ইতি টেনেছেন এক নারী। শেষ পর্যন্ত বিয়ে থেকে মুক্তি পাওয়ার খুশিতে ডিভোর্স পার্টি দিয়েছেন তিনি। বুধবার গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের বাসিন্দা সোনিয়া গুপ্ত নামে ৪৫ বছর বয়সী ওই নারী নিজের বিবাহিত জীবনের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি উপলক্ষে ডিভোর্স পার্টিতে আমন্ত্রণ জানান পরিবারের সদস্য ও বন্ধুদের। এক ছবিতে দুই সন্তানের জননী ওই নারীকে ঝলমলে রঙিন পোশাকের ওপর ’ফাইনালি ডিভোর্স’ লেখা সাটিন স্যাশ পরতে দেখা গেছে। পার্টিতে আগত অতিথিদের ঝলমলে ও উজ্জ্বল পোশাক পরে আসতে বলেছেন সোনিয়া। নিজের ব্যক্তিত্বের আঙ্গিকেই পার্টির থিম ঠিক করেছিলেন সোনিয়া। তিনি নিজেকে একজন খোলামনের মানুষ হিসেবে অভিহিত করেছেন। কিন্তু তার স্বামী ছিলেন পুরোপুরি তার বিপরীত। বিয়ের শুরু থেকেই ভীষণ মনমরা থাকতেন সোনিয়া। তিনি জানতেন তাদের জুটি একদম মানায় না।

২০০৩ সালে ভারতে বিয়ে হয় সোনিয়ায়। বিয়ের পরই তিনি অনুধাবন করেন, তার বিবাহিত জীবন সুখের নয়। এরপর বহু বছর ধরে বিয়ে টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করেন তিনি। বিয়ে ভাঙার ব্যাপারে সোনিয়া বলেন, আমি যখন ডিভোর্সের সিদ্ধান্তের ব্যাপারে আমার পরিবারকে জানাই, তারা আমার এই সিদ্ধান্ত একদমই মেনে নেয়নি। কিন্তু আমার দুই ছেলে আর বন্ধুরা আমাকে সব সময় সমর্থন জানিয়েছেন।

এদিকে বিবাহ বিচ্ছেদের ঘটনায় পার্টির আয়োজন করে বিভিন্ন গনমাধ্যমে উঠে এসেছে ডিভোর্স প্রাপ্ত নারী সোনিয়া গুপ্ত। এমনকি এমন ঘটনায় তাকে নিয়ে চলছে বেশ আলোচনা-সমালোচনা। ২০০৩ সালে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন সোনিয়া গুপ্ত। বিবাহ বিচ্ছেদের মধ্যে দিয়ে দীর্ঘ দিনের সংসার জীবনের সমাপ্ত ঘটেছে।

About

Check Also

১৮ জুন শুরু হবে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ

একজন ভারতীয় জ্যোতিষী ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন যে ১৮ জুন তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হতে পারে। সোশ্যাল মিডিয়ায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *