Sunday , May 19 2024
Breaking News
Home / Sports / আদালতে আত্মসমর্পণ করলেন নাসির-তামিমা

আদালতে আত্মসমর্পণ করলেন নাসির-তামিমা

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অন্যতম আলোচিত অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নাসির হোসেন। এর আগেও বেশ কয়েকবার প্রেম সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে আলোচনায় এসেছেন তিনি। আর এরই মধ্যে চলতি বছরের গত ১৪ ফেব্রুয়ারি বিয়ে জালিয়াতির মাধ্যমে তামিমা সুলতানা তাম্মি নামে এক কেবিন ক্রুর সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার মধ্য দিয়ে গত কয়েক মাস ধরেই খবরের শিরোনামে রয়েছেন তিনি।

এদিকে জানা গেল, আজ রোববার (৩১ অক্টোবর) জালিয়াতির মাধ্যমে অন্যের স্ত্রীকে বিয়ে করার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় নাসির ও তার স্ত্রী তামিমা আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেছেন।

রোববার (৩১ অক্টোবর) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিমের আদালতে তারা আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন তারা।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সংশ্লিষ্ট আদালতের পেশকার মো. মাসুদ।

এর আগে ৩০ সেপ্টেম্বর ক্রিকেটার নাসির হোসেন ও তার স্ত্রী তামিমা সুলতানাসহ তিনজনকে ৩১ অক্টোবর আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়ে সমন জারি করা হয়। অন্য আসামি হলেন তামিমার মা সুমি আক্তার।

ওই দিন নাসির ও তামিমার বিয়ে অবৈধ বলে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। নাসির, তামিমাসহ তিন আসামির বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মিজানুর রহমান।

এরপর মামলার বাদী ও তামিমার প্রথম স্বামী ব্যবসায়ী মো. রাকিব হাসানের পক্ষে তার আইনজীবী ইশরাত জাহান তিন আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আবেদন করেন। আদালত তাদের ৩১ অক্টোবর আদালতে হাজির হতে সমন জারি করেন।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, রাকিবকে তালাক দেননি তামিমা। আইনগতভাবে রাকিব তালাকের কোনো নোটিশও পাননি। তামিমা উল্টো জালিয়াতি করে তালাকের নোটিশ তৈরি করে তা বিভিন্ন মাধ্যমে প্রকাশ করেছেন। যথাযথ প্রক্রিয়ায় তালাক না দেওয়ার ফলে তামিমা তাম্মী এখনো রাকিবের স্ত্রী হিসেবে বহাল রয়েছেন। দেশের ধর্মীয় বিধিবিধান ও আইন অনুযায়ী এক স্বামীকে তালাক না দিয়ে অন্য কাউকে বিয়ে করা অবৈধ ও শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এমন পরিস্থিতিতে ক্রিকেটার নাসির হোসেন ও তামিমা তাম্মীর বিয়ে অবৈধ।

এ দুজনের পাশাপাশি অবৈধ বিয়েটিতে তামিমার মা সুমি আক্তারকেও দোষী বলে উল্লেখ করা হয়েছে প্রতিবেদনে।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি তামিমার প্রথম স্বামী রাকিব হাসান বাদী হয়ে এ মামলা করেন। ওই দিনই আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করেন। এরপর শুনানি শেষে মামলার অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করে পিবিআইকে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ২০১১ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি তামিমা ও রাকিবের বিয়ে হয়। তাদের আট বছরের একটি মেয়েও রয়েছে। তামিমা পেশায় একজন কেবিন ক্রু। চলতি বছরের (২০২১) ১৪ ফেব্রুয়ারি তামিমা ও নাসির হোসেনের বিয়ের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তা রাকিবের নজরে আসে। পরে পত্রপত্রিকায় তিনি ঘটনার বিষয়ে বিস্তারিত জানতে পারেন।

এরপর ডিভোর্স পেপার ছাড়াই বিয়ে করার অভিযোগে ক্রিকেটার নাসির হোসেন ও তামিমা সুলতানার বিরুদ্ধে মামলাটি করেন রাকিব।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, রাকিবের সঙ্গে বৈবাহিক সম্পর্ক থাকাবস্থায় নাসিরকে বিয়ে করেছেন তামিমা, যা ধর্মীয় ও রাষ্ট্রীয় আইন অনুযায়ী সম্পূর্ণ অবৈধ। তামিমাকে প্রলুব্ধ করে নাসির নিজের কাছে নিয়ে গেছেন। তামিমা ও নাসিরের এমন অনৈতিক ও অবৈধ সম্পর্কের কারণে রাকিব ও তার আট বছর বয়সী শিশুকন্যা মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়েছেন। আসামিদের এ ধরনের কার্যকলাপে রাকিবের চরম মানহানি হয়েছে, যা তার জন্য অপূরণীয় ক্ষতি।

এদিকে পিবিআইয়ের দেয়া এক তথ্যের আলোকে জানা গেছে, নাসিরের এ অনৈতিক কাজে সাহায্য করেছেন তামিমার মা সুমি আক্তার। ফলে এ ঘটনায় তিনজনকেই অভিযুক্ত করেছে পিবিআই। এর আগে কোনো প্রকার ডিভোর্স পেপার ছাড়াই নিজের স্ত্রীকে বিয়ে করার অভিযোগে নাসির-তামিমার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন রাকিব হাসান।

About

Check Also

গ্যালরি ভরা দর্শেকের সামনে ভক্তকে চড় মারলেন সাকিব, নেট দুনিয়ায় সমালোচনার ঝড়

বাংলাদেশ ক্রিকেটের পোস্টার বয় সাকিব আল হাসান। মাঠ এবং মাঠের বাইরে আলোচনায় থেকেই তিনি। আরও …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *