Saturday, February 4, 2023
বাড়িNational২০২৪ সাল থেকে চট্টগ্রাম-সৌদি নৌরুটে হজযাত্রী বহন করবে ৩২ তলাবিশিষ্ট জাহাজ (ছবি...

২০২৪ সাল থেকে চট্টগ্রাম-সৌদি নৌরুটে হজযাত্রী বহন করবে ৩২ তলাবিশিষ্ট জাহাজ (ছবি সহ)

Ads

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশ থেকেও পবিত্র হজ পালনের জন্য সৌদি আরব গিয়ে থাকেন অসংখ মানুষ। তবে সেখানে যাওয়ার জন্য একমাত্র পথ এতদিন ছিল উড়োজাহাজ যা অত্যান্ত ব্যায়বহুল তবে এবার বাংলাদেশের হজযাত্রীদের জন্য সাশ্রয়ী মূল্যে ২০২৪ সাল থেকে একটি ৩২ তলা জাহাজ চট্টগ্রাম-জেদ্দা সমুদ্রপথে চলাচল শুরু করবে। দেশের জাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান- কর্ণফুলী শিপবিল্ডার্স লিমিটেড এ রুট চালুর উদ্যোগ নিয়েছে। ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রকৌশলী এম এ রশিদ জানান, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ে জাহাজ পরিচালনার জন্য একটি নীতিমালা প্রণয়ন করা হচ্ছে।

এম এ রশিদ বলেন, জাহাজটি আনার অনুমোদন পেলে আট দিনের মধ্যে চট্টগ্রাম থেকে যাত্রী নিয়ে সৌদি আরব যাবে। আগে সমুদ্রপথে সৌদি আরবে পৌঁছাতে এক মাস সময় লাগতো, এখন অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে সজ্জিত জাহাজগুলো উচ্চ গতিতে যেতে পারে।

“আমরা তীর্থযাত্রীদের একটি খরচ-কার্যকর ভ্রমণ বিকল্প প্রদান করার আশা করি।”

তিনি আরও বলেন, হজযাত্রীরা সমুদ্রপথে ভ্রমণের সময় কোনো অসুবিধা ছাড়াই জাহাজে নামাজ আদায় করতে পারেন। বেশিরভাগ সময় যখন বিমান ভ্রমণের কথা আসে, এটি এমন কিছু নয় যা করা যেতে পারে।

কর্ণফুলী শিপবিল্ডার্সের এমডি বলেন, হজযাত্রীবাহী জাহাজ চালুর বিষয়ে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়সহ ১১টি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বৈঠক করেছি। বৈঠকের সারসংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হয়েছে। সারা বিশ্বে ১০ টি শ্রেণিবিন্যাস সমিতি রয়েছে – যারা জাহাজের ফিটনেস, মেরামত, অপারেশন থেকে শুরু করে সবকিছু দেখে এবং জাহাজ পরিচালনার অনুমতি দেয়। আমি ক্লাসিফিকেশন সোসাইটি দ্বারা অনুমোদিত ৩২ ডেকের একটি পুরানো জাহাজ আমদানি করতে চাই। এটি একসঙ্গে তিন হাজার তীর্থযাত্রী বহন করতে পারবে। জাহাজটিতে একটি বিশাল অডিটোরিয়াম থাকবে, যেখানে একসঙ্গে দুই হাজার তীর্থযাত্রী বসতে পারবেন। ১৪ -১৫ তলা বিশিষ্ট একটি নতুন জাহাজ তৈরি করতে ৫০০০ কোটি টাকা লাগে। আমরা ৫০০ কোটি টাকায় একটি জাহাজ আমদানি করব। বিমান ভাড়াসহ অন্যান্য খরচসহ হজে জনপ্রতি খরচ হয় প্রায় ৫ লাখ টাকা। জাহাজে যাত্রী আনতে কমপক্ষে দেড় লাখ টাকা ছাড় দিতে হবে।

সরকারি নীতি অনুযায়ী, আন্তর্জাতিক শ্রেণিবিন্যাস সোসাইটির অনুমোদন সাপেক্ষে ক্রুজ জাহাজ আমদানি করা যেতে পারে। আমাদের প্রস্তাব হচ্ছে জাহাজটি বছরে দুই মাস হজযাত্রীদের বহন করবে। বাকি ১০ মাস এশিয়ার বিভিন্ন রুটে যাত্রী পরিবহন করবে। হজ মৌসুমে ভালো সাড়া পেলে জাহাজ ভাড়া করা হবে। হজ শুরুর সাত দিন আগে জাহাজ ছাড়লে সৌদি আরবে গিয়ে ৭-৮ দিনের জন্য হোটেল ভাড়া করতে হবে না। এখানেও হজযাত্রীদের দেড় লাখ টাকা সাশ্রয় হবে’- বলেন প্রকৌশলী রশিদ।

প্রসঙ্গত, কর্ণফুলী শিপবিল্ডার্স এশিয়ার শীর্ষস্থানীয় ড্রেজার প্রস্তুতকারকদের একটি। এখন পর্যন্ত এটি বাংলাদেশের জন্য ৫০০০ কোটি টাকার বেশি মূল্যের ড্রেজার নির্মাণ করেছে। সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটি চট্টগ্রামে কর্ণফুলী ড্রাই ডক লিমিটেড নামে দেশের প্রথম বেসরকারি জেটি নির্মাণ করেছে।

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments