Monday, January 30, 2023
বাড়িConutrywideটাকার লোভ দেখিয়েও রাখতে পারলো না বিদেশি স্বামীকে, এবার কথা বললেন সেই...

টাকার লোভ দেখিয়েও রাখতে পারলো না বিদেশি স্বামীকে, এবার কথা বললেন সেই রত্নার বাবা-মা

Ads

সম্প্রতি গত কয়েকদিন আগেই বেশ জমকালো আয়োজনের মধ্যদিয়ে আলী সান্দ্রে চিয়ারোমিন্তে নামে ইতিলিয়ান যুবকের সঙ্গে সাত পাকে বাধাঁ পড়েছিলেন বাংলাদেশি মেয়ে রত্না রানী দাস। কিন্তু দাম্পত্য জীবনের এক মাস যেতে না যেতেই ঘটে যায় এক অপ্রত্যাশিত ঘটনা।

রত্নার পরিবারের অভিযোগ, বিয়ের এক মাস পর ইতালীয় যুবক রত্নাকে ছেড়ে চলে যাওয়ার গুজব ছড়াচ্ছেন অনেকে।

কেউ বলে যে ইতালীয় যুবক রত্মাকে রেখে নিখোঁজ হয়েছে, আবার কেউ বলে যে তার পরিবার অর্থের জন্য তাকে বিয়ে করেছিল। তবে এ বিষয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে নারাজ রত্মা ও তার পরিবার।

পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত ২৪ জুলাই প্রেমের টানে ইতালি থেকে বাংলাদেশে আসা ঐ যুবকক তাকে সনাতন ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী বিয়ে করেন। বিয়ের এক মাস পর দেশে ফিরে আসেন। তার বিদায় নিয়ে স্থানীয় লোকজন গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে নানা ধরনের ভুল তথ্য প্রচার করছে বলে তার পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন।

রত্নার বাবা মার্কাস দাস বলেন, আমার জামাই পালিয়ে যায়নি এবং আমরা টাকার জন্য মেয়েকে বিয়ে দেইনি। জামাই ইতালি থেকে এসেআমার মেয়েকে বিয়ে করেছেন। বিয়ের এক মাস পর জামাই দেশে ফিরে যান।

তিনি আরও বলেন, আমার মেয়ের বাংলাদেশে বিয়ে হয়নি, যে যখন তখন তাকে তার জামাইয়ের সঙ্গে পাঠানো যেতে পারে। এটা বিদেশের ব্যাপার, সেখানে পাঠাতে ভিসা, পাসপোর্টসহ নানা বিষয় রয়েছে। যাওয়ার সময় জামাই আমাদের জন্য সব কাগজপত্র প্রস্তুত করে রেখেছিলেন। কিছু প্রয়োজনীয় কাজ আছে, সেগুলো শেষ হলে খুব তাড়াতাড়ি আমার মেয়ে তার জামাইয়ের কাছে যাবে। এর বেশি কিছু বলতে পারছি না, দয়া করে আর কোনো ভুল তথ্য ছড়াবেন না। কিন্তু আমার মেয়ে আজ, কাল, এক মাস বা এক বছর পরে ইতালি যাবে এবং আমার জামাই তাকে নিয়ে যাবে।

রত্নার মা জানান, আমার মেয়ের জামাই একটা মাটির মানুষ, তার ব্যবহার খুব ভালো। সে ইতালি থেকে এসে আমার মেয়েকে বিয়ে করেছে এবং আমার ভাঙা ঘরে এক মাস ছিল। কোনদিন বলেনি যে খারাপ লাগছে। জামাই সব সময় হাসিখুশি থাকে, এতে মোক (আমার) খুব ভালো লাগে। জামাই চলে যাওয়ার পর তিনি প্রতিদিন মেয়ের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করেন, কথা বলেন, শাশুড়ির খোঁজ খবর নেন। মোবাইল ফোনে অনেক কথা বলে হাসে। ইতালীয় ভাষায় কথা বলে এবং মাঝে মাঝে বাংলায় কথা বলে এবং বাংলায় দুটি শব্দ বলতে পারে। বলে “মা, বাবা-মা ভালো আছেন”।

তবে ইতিলিয়ান ঐ যুবকের খুবই ঘনিষ্ঠ এক বন্ধুর সঙ্গে যোগাযোগ করা তিনি দাবি করেছেন, আলী সান্দ্রে চিয়ারোমিন্তের স্ত্রী সন্তান রয়েছে। সে পরিবারকে গুরুত্বপূর্ণ কাজের কথা বলে বাংলাদেশে এসে ঐ তরুণীকে বিয়ে করেন। যা কিছুই জানতো না তার পরিবার।

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments