Tuesday, January 31, 2023
বাড়িopinionইন্ডিয়া টুডে সুলতানা কামালকে যে তৈলাক্ত প্রশ্ন করছে সেটা বিটিভিকে ফেইল করে...

ইন্ডিয়া টুডে সুলতানা কামালকে যে তৈলাক্ত প্রশ্ন করছে সেটা বিটিভিকে ফেইল করে গেছে: আরিফ

Ads

সম্প্রতি ভারতের একটি টেলিভিশন চ্যানেল এর ইন্টারভিউ তে মানবাধিকার কর্মী সুলতানা কামালের দেওয়া কিছু বক্তব্য নিয়ে বেশ আলোচনা উঠেছে এবং রাজনৈতিক অঙ্গনে তার এই বক্তব্য নিয়ে অনেকে অনেকরকম কথা বলছে এই প্রসঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন লেখক আরিফ রহমান। নিচে পাঠকদের জন্য তা তুলে ধরা হল-

ইন্ডিয়া টুডে-কে দেয়া সুলতানা কামালের পুরো ইন্টার্ভিউটা পড়লাম। সুলতানা কামালকে আসলেই মিসকোট করা হইসে। যেই নিম্নমানের তৈলাক্ত প্রশ্ন ইন্ডীয়া টুডে করছে সেটা বিটিভিকে ফেইল করে গেছে। তার বিপরীতে সুলতানা কামালের অতটুকু না বললেই চলত না।
একটা প্রশ্ন ছিলো এরকম-
ইন্ডিয়া টুডে:
বাংলাদেশের একটি রক্তাক্ত অতীত আছে। ১৯৭৫ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর দেশের প্রথম সামরিক স্বৈরশাসক ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জেনারেল জিয়াউর রহমানের শাসনামলে অন্তত ১৯টি অভ্যুত্থান সংঘটিত হয়। জেনারেল এরশাদের শাসনামলেও একই প্রবণতা লক্ষ্য করি আমরা। তারপর ২০০১ থেকে ২০০৬ সালের মধ্যে বেগম জিয়ার অধীনে মানবাধিকারের ভয়াবহ লঙ্ঘন হয়। এছাড়া, ২০১৩ সাল থেকে বিএনপি-জামায়াত জোটের হাতে নজিরবিহীন সহিংসতার কথা আমরা সবাই জানি। এইসব বিষয়কে বিবেচনায় না নিয়ে শুধু একপাক্ষিকভাবে আওয়ামী লীগের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা কি আপনি ন্যায়সঙ্গত মনে করছেন?

সুলতানা কামাল:
দেখেন, আমি মনে করি না যে অতীতের অন্য অপরাধীরা খারাপ কাজ করেছিল বলে বর্তমান সময়ে সংঘটিত অপরাধগুলিকে উপেক্ষা করার বা অস্বীকার করার কোন সুযোগ আছে। গুমের মত গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের কারণে আজ যেই প্রতিষ্ঠানটির (র‍্যাব) ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে, সেই গুম বন্ধ করার জন্য কিন্তু বাংলাদেশের সুশীল সমাজসহ সংশ্লিষ্ট গোষ্ঠীগুলোর বারবার প্রতিবাদ জানিয়ে গেছে।
আরেকটা প্রশ্ন ছিল-

ইন্ডিয়া টুডে:
আওয়ামী লীগ ও বিএনপির ট্র্যাক রেকর্ড দেখে আপনি কি মনে করেন না শেখ হাসিনার হাতে বাংলাদেশ বেশি নিরাপদ?
সুলতানা কামাল:
একটি সমতাভিত্তিক, অসাম্প্রদায়িক ও ন্যায়পরায়ণ সমাজ প্রতিষ্ঠার একটা অঙ্গীকার আওয়ামী লীগের ছিল। তবে এসব অঙ্গীকারের কোনকিছুই বাস্তবায়িত হয়নি। একজন মানবাধিকার কর্মী হিসেবে আমার দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতা থেকে আমরা কেবল প্রমাণের ভিত্তিতে কথা বলতে পারি।

দল-মত নির্বিশেষে বাংলাদেশে ভিন্নমতকে দমন করতে পরপর ঘটে যাওয়া বলপূর্বক
গুমের ঘটনা বাংলাদেশের রাজনীতিতে এক ভীতিকর সমস্যা হিসেবে দেখা দিয়েছে। এই ধরনের হুমকির মুখে নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সুস্পষ্ট দায়িত্ব রয়েছে রাষ্ট্রের। এসব মামলার সঠিক ও কার্যকর তদন্তের জন্য সুশীল সমাজের বিভিন্ন সংগঠন, মানবাধিকার কর্মী, গণমাধ্যম এবং খোদ সরকারের সহযোগিতা প্রয়োজনীয়তা আবশ্যক।

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments