Saturday, February 4, 2023
বাড়িpolitics১৬ বছর পর হটাৎ বিএনপি কার্যালয়ে পা দিলেন অলি, জানা গেল কারন

১৬ বছর পর হটাৎ বিএনপি কার্যালয়ে পা দিলেন অলি, জানা গেল কারন

Ads

বিএনপির কার্যালয়ে দেখা মিললো এলডিপির সভাপতি কর্নেল অলি আহমেদের। মূলত তিনি অতীতে বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ছিলেন। বিএনপি সরকার গঠন করলে তিনি একাধিকবার মন্ত্রী হন।এর পর বিএনপি থেকে তার অবস্থান কিছুটা দূরে লক্ষ্য করা যায়।

কিন্তু প্রবীণ এই রাজনীতিবিদ ২০০৬ সালে দল ত্যাগ করেন। এরপর তিনি আর বিএনপির কার্যালয়ে পা রাখেননি। পরে বিএনপি জোটে যোগ দিলেও দলটির সঙ্গে অসম্মান এখনো পুরোপুরি কাটেনি।

দীর্ঘ ১৬ বছর পর আজ বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এলেন কর্নেল অলি। যেখানে জিয়াউর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর নিয়মিত যাতায়াত করতেন।

আজ কার্যালয়ে এলে তাকে স্বাগত জানান বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। তিনি কর্নেল অলিকে দেখান ক্ষতিগ্রস্ত বিএনপি অফিসের চারপাশ।

গত ৭ ডিসেম্বর বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সমাবেশকে ঘিরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নয়াপল্টন কার্যালয় ভাঙচুর করে। বিএনপির অভিযোগ- দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ম্যুরাল ও চেয়ারপারসনের কার্যালয় ভাঙচুর করা হয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্ত বিএনপি কার্যালয় দেখতে নয়াপল্টনে আসেন অলি আহমেদ।

ক্ষতিগ্রস্ত বিএনপি কার্যালয় দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেন কর্নেল অলি। তিনি বিএনপি নেতাদের প্রতি সহানুভূতিশীল।
কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ বলেন, সত্তরের দশকেও পাক হানাদার বাহিনী কোনো রাজনৈতিক কার্যালয়ে এমন বর্বরতা চালায়নি। কারও বাড়িতে গাড়ি চালায়নি। পুলিশ তালা ভেঙে ভেতরে ঢুকে লুটপাট করেছে।

লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) সভাপতি ড. কর্নেল অলি বলেছেন, ‘বিএনপির বড় অর্জন- এটি সরকারের কাছে বিশ্বের কাছে উন্মোচিত করেছে। কারণ বিশ্ববাসী জানে সরকারের মানবিকতা নেই। পুলিশ, ছাত্রলীগ ও যুবলীগ মিলে এ কাজ করেছে। তাদের মনে রাখতে হবে কোনো স্বৈরশাসক স্বৈরাচার করে টিকে থাকতে পারে না।

বিরোধী দল সরকারের ফাঁদে পা দেবে না উল্লেখ করে এলডিপি চেয়ারম্যান বলেন, এই সরকারকে শান্তিপূর্ণভাবে অপসারণ করতে যা যা করা দরকার তা করতে হবে। আইন অনুযায়ী সবকিছু করা হবে। বিএনপিকে শক্তিশালী হয়ে কর্মসূচি দিতে হবে। আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে এর মোকাবিলা করতে প্রস্তুত।

কর্নেল অলি বলেন, “আমরা সবাই আলোচনা করে ১০ দফা ঘোষণা করেছি। সরকার পতন না হওয়া পর্যন্ত আমরা আন্দোলন করব, প্রতিবাদ আরও জোরদার করতে হবে। সরকারকে পালানোর সুযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ৭ ডিসেম্বরের পর তারা সেই সুযোগ বন্ধ করে দিয়েছে। এখন মানুষ তাদের বিচার করবে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিনপির সভা সমাবেশ হচ্ছে দেশের বিভিন্ন জায়গায় এরই মধ্যে তাদের এই সমাবেশে সরকার বাধা দেওয়া এবং নেতাকর্মীদের বিপাকে ফেলার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করছেন তারা ,এদিকে কর্নেল অলি অবিলম্বে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মুক্তি ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান।

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments