Tuesday, December 6, 2022
বাড়িConutrywideমৃত্যুদণ্ডের রায় শুনে কেমন ছিলেন লিয়াকতের মা

মৃত্যুদণ্ডের রায় শুনে কেমন ছিলেন লিয়াকতের মা

Ads

লিয়াকত (Liaquat) আলীর বাসায় বর্তমানে শোক চলছে। এদিকে, গতকাল সোমবার দেশের বহুল আলোচিত মেজর সিনহা (Major Sinha) হ’ত্যার মামলার রায় দেওয়া হয়েছে। এই মামলার রায় দেওয়ার সময় আসামিদের আদালতে হাজির করা হয়। মেজর সিনহা হ’ত্যা মামলায় ওসি প্রদীপ (OC Pradeep) কুমার দাশ সহ লিয়াকত আলীকে ফাঁ’সির রায় দেওয়া হয়েছে। বাকি আসামিদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেওয়া হয়েছে। লিয়াকতের বাড়িতে তার মা সহ আরো আত্মীয় স্বজন রয়েছে তারা রায় শুনে ভেঙে পড়েছেন।

সিনহা হ’ত্যা মামলায় লিয়াকতের ফাঁ’সির রায় শুনে কান্নায় ভে’ঙে পড়েন তার মা। তবে পরিবারের অন্য সদস্যরা রায় শোনার জন্য কক্সবাজার আদালতে ছুটে যান। লিয়াকতের মা রোকেয়া বেগম (৮০) কে প্রতিবেশীরা সান্ত্বনা দেন। রায়ের পর গ্রামবাসী লিয়াকতের বাড়িতে ভিড় জমায়।

তবে এ রায় নিয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া জানাতে চাননি তারা।
মৃ’ত্যুদণ্ডের আসামি চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার হাবিলাসদ্বীপ ইউনিয়নের হুলাইন গ্রামের বাসিন্দা। তার পিতার নাম সাহাব মিয়া। সিনহাকাণ্ডের কয়েকদিন আগে তিনি মারা যান। সিনহা হ’ত্যা মামলার এক নম্বর আসামি ছিলেন ইন্সপেক্টর লিয়াকত (Inspector Liaquat)।

সোমবার দুপুরে কক্সবাজারের আদালত সিনহা হ’ত্যা মামলার রায় ঘোষণা করেন। আদালত এই মামলায় লিয়াকত এবং বরখাস্তকৃত ওসি প্রদীপের মৃ’ত্যুদণ্ড দেন। আদালত ছয় আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও সাতজনকে খালাস দিয়েছেন।

রায় ঘোষণার পর লিয়াকতের গ্রামের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, রায়ের খবর শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন তার মা রোকেয়া বেগম। এ সময় প্রতিবেশী ও স্থানীয়রা তাকে সান্ত্বনা দেন। একপর্যায়ে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েন রোকেয়া বেগম।

জানা গেছে, লিয়াকতের ছয় ভাই ও এক বোন রয়েছে। এর মধ্যে লিয়াকত সবার ছোট। তিনি ২০১০ সালে পুলিশে যোগদান করেন। প্রথমে ডিবিতে, পরে সোয়াট ও অ্যান্টি টেরিরিজম দলে কাজ করেন। পুলিশ পরিদর্শক হিসেবে পদোন্নতি পেয়ে তিনি টেকনাফ থানার অধীনে বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রে যোগ দেন। স্থানীয়রা তাদের পরিবারকে শিক্ষিত পরিবার হিসেবে সম্মান করত। তবে সিনহাকে হ’ত্যার পর এলাকায় তার বিরুদ্ধে তোলপাড় শুরু হয়।

ইউনিয়নের হুলাইন গ্রামের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জানান, লিয়াকতের পরিবারের সদস্যরা সিনহার রায় শোনার জন্য কক্সবাজারে গেছেন। গণমাধ্যমে লিয়াকতের ফাঁ’সির রায় ঘোষণা হলে কান্নায় ভেঙে পড়েন তার মা রোকেয়া বেগম। এ সময় প্রতিবেশীরা তাকে সান্ত্বনা দিয়ে বলেন, উচ্চ আদালতে আপিল করলে আপনার ছেলে ন্যায় বিচার পাবে।

পটিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম মজুমদারের কাছে জানতে চাইলে লিয়াকতের মৃ’ত্যুদণ্ডের বিষয়ে পটিয়ায় কোনো প্রতিক্রিয়া আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, সিনহা হ’ত্যার ঘটনার রায়ে পটিয়ায় এ পর্যন্ত কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

এদিকে, মেজর সিনহার পরিবার থেকে বলা হয়েছে তারা এই রায়ে সন্তষ্ট। তবে এই রায় দ্রুত কার্যকর করার কথা বলেছেন মেজর সিনহার পরিবার। রায়ের পর আসামিদের কারাগারে নেওয়া হয়েছে। আর লিয়াকত আলীর বাসায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তার মা রায় শোনার পরই কান্নায় ভেঙে পড়েন। এ সময় প্রতিবেশীর লোকজন এসে তার মেক সান্তনা দেওয়ার চেষ্টা করে

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments