Tuesday, December 6, 2022
বাড়িopinionপ্রতিমন্ত্রি মুরাদকে নিয়ে করা আমার সেই ভবিষ্যৎবাণী সত্য হয়েছে : জিয়া

প্রতিমন্ত্রি মুরাদকে নিয়ে করা আমার সেই ভবিষ্যৎবাণী সত্য হয়েছে : জিয়া

Ads

তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হানাকে নিয়ে বেশ আলোচনা উঠেছিল বেশ আগে নানা অপ্রীতিকর কাণ্ডের জন্ম দিয়েছিলেন তিনি এবং নানা বিতর্কিত বক্তব্য দিয়ে তিনি সমালোচিত হয়েছিল এবং এই কারনে তাকে তার পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় এই প্রসঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এ স্ট্যাটাস দিয়েছেন লেখক জিয়া হাসান নিচে তার স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হল –

প্রতিমন্ত্রি মুরাদ নিয়ে আলোচনার সময়ে আমার স্ত্রী প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ হয়ে ছিল।
সাম্প্রতিককালে বিভিন্ন ভাইরাল ঘটনা আমি একেবারেই অনুসরন করি না। কিন্তু আমার স্ত্রী টাইম টু টাইম এসে আমাকে বলতো, দেখো মুরাদকে কানাডায় ঢুকতে দেয় নাই , দেখো দেখো সঠিক শাস্তি হয়েছে মুরাদকে দুবাইএ ঢুকতে দেয় নাই।

এই বার যাবে কই সে, ইত্যাদি ইত্যাদি।
আমি তাকে বলছিলাম, সে বিদেশে যাচ্ছে কেন তাইতো বুঝতেছিনা। তার নামে কি দেশে কোন মামলা হয়েছে? তার বিরুদ্ধে কি কোন গ্রেপ্তারি পরোয়ানা হয়েছে, তার কি এমপি পদ গ্যাছে ?
শেখ হাসিনা কি বলেছে তার বিরুদ্ধে শাস্তি মুলক ব্যবস্থা নেবে ?
তাহলে কেন সে দেশ ছাড়তেছে ?

আমার স্ত্রী রেগে যেত, তুমি কি বলো ? এতো বড় ঘটনা, তার বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেবে।
আমি বলতাম, তুমি অপেক্ষা করো, দেখো। সোশাল মিডিয়াতে মানুষ জন অবারচিনের মত শোরগোল করতেছে, সে সেই আলোচনা এড়াতে দেশ ছারতেছে। কিন্তু তার কোথাও যাওয়ার দরকার নাই। শেখ হাসিনা তার বিরুদ্ধে কিছুই করবে না।

সে ধীরে ধীরে পাব্লিক লাইফে ব্যাক করবে।
বলার অপেক্ষা রাখে না, আমার সেই ভবিষ্যৎবাণী সত্য হয়েছে। প্রতি মন্ত্রি মুরাদ পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছে বটে, কিন্তু সে বহাল তবিয়তে এখন মেম্বার অফ পারলামেন্ট, আপনাদের জন্যে আইন বানায়। তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয় নি।

মুরাদদের “আসতে হবে” এর চিৎকার … কোন মদ্যপ লম্পটের ক্ষমতার বড়াই না বরং আওয়ামি লীগের বাংলাদেশের সমাজকে নিয়ন্ত্রণ করে, এই ফ্যাসিজম টিকিয়ে রাখার জন্যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি টুলস।
বাংলাদেশের মিডিয়াকে নিয়ন্ত্রণ করার বিবিধ আইন এমনি এমনি করা হয় নাই, এই আসতে হবের ডাক শুনে আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হওয়া নারীদেরকে কণ্ঠস্বর লুকানোর জন্যেই এই আইন।

এই অবস্থায় ইডেনের ছাত্র লীগের নেত্রি যে অভিযোগ এনেছেন সেইটা নিয়েও কোন ব্যবস্থা নেওয়া হবেনা, অথবা নাম দেখানো কিছু বহিস্কারের মাধ্যমে পারসেপ্সন ম্যানেজ করা হবে ।
না নেওয়ার ফলে যেটা হবে, মানুষের মনের মধ্যে সব চেয়ে অরস্ট কেস সিনারিওটাও রিয়ালিটির চিত্র হিসেবে গেথে যাবে।
বাস্তবতা হচ্ছে, বাস্তবতা কত খারাপ আমরা জানিনা। ইতোমধ্যে বেশ কিছু ছাত্রীর ফার্স্ট হ্যান্ড একাউন্ট থেকে আমরা জানতে পারছি যে, পলিটিকাল সিটের ছাত্রিদের জন্যে এই ধরনের বাস্তবতা থাকতে পারে, কিন্তু তাও সকলের জন্যে নয় এবং পুরো ইউনিভারসিটির জন্যে বাস্তবতাটা এমন নয়।

পলিটিকাল সিটের গুটি কয়েক ছাত্রিকে যে এই বাস্তবতা ফেস করতে হয়, এইটাই অনেক বড় অভিযোগ।
কিন্তু, এই অভিযোগের কোন বিশ্বাসজগ্য তদন্ত ও শাস্তি হবেনা। ফলে, সব দিক থেকে আমরা অরস্ট কেস সিনারিও গুলো পাবো।

এতো বছরের নামকড়া একটা ইউনিভারসিটি যেখানে ৩৫ হাজার ছাত্রি লেখা পড়া করে তাদের সকলকেই সমাজ সন্দেহের চোখে দেখবে, অনেককেই পরিবারে প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হবে, আবার অন্য দিকে প্রকৃত দোষীদের কোন বিচার হবেনা।

ব্যবস্থাটা খোলস পাল্টিয়ে চলতেই থাকবে,
অনেক ভালনারেবল নারীকে “আসতে হবে” এর কাছে আত্মসমর্পণ করতে হবে।
একজন নারী হয়েও, শেখ হাসিনা প্রতিমন্ত্রি মুরাদের মত তার দলের নেতা কর্মীদের প্রটেকশান দিয়ে যাবেন।
কারন উনি জানেন এই আসতে হবের ডাকই , সমাজকে ভীত করে তার ক্ষমতা টেকায় রাখে।

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments