Friday, March 24, 2023
বাড়িConutrywideনা ফেরার দেশে সম্রাট, দুঃশ্চিন্তা তাড়া করে বেড়াচ্ছে স্ত্রী এলমাকে

না ফেরার দেশে সম্রাট, দুঃশ্চিন্তা তাড়া করে বেড়াচ্ছে স্ত্রী এলমাকে

Ads

সম্প্রতি রাজধানী ঢাকার গুলিস্থানের সিদ্দীকবাজারে ঘটে গিয়েছে একটি বিস্ফোরণের ঘটনা যেখানে না ফেরার দেশে চলে গিয়েছে অনেক মানুষ। এই না ফেরার দেশে যাওয়া ব্যাক্তিদের মধ্যে একজন হচ্ছেন সম্রাট। পরিবারের কর্মক্ষম ব্যাক্তিকে হারিয়ে এখন দিশেহারা তার স্ত্রী। ছোট দুই শিশু নিয়ে ঘরছেন মানুষের দ্বারে দ্বারে।

ছোট্ট শিশু আজরাফ উদ্দিন সরফ এখনো জানে না তার বাবা আর বেঁচে নেই। গত ৭ মার্চ গুলিস্তানের ছিদ্দিক বাজারে ভয়াবহ বিস্ফোরণে শিশুটির বাবা সম্রাট হোসেন ঘটনাস্থলেই মারা যান। তবে ৫ বছর বয়সী শিশুটি এখনো মনে করে তার বাবা কাজে গেছেন। সে শীঘ্রই ফিরে আসবে, পিতৃস্নেহে তাকে কোলে নিবে। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস, বাবা আর ফিরবেন না।

শিশুটি তার বাবার ফিরে আসার পথ খুঁজছে, কিন্তু তার মা চারদিকে শুধু অন্ধকার দেখছে। যেন আর কোনো আশা নেই। মৃত সম্রাট পরিবারের একমাত্র কার্যকরী ব্যক্তি ছিলেন। কিন্তু মৃত্যুর পর তার ৫ মাস বয়সী মেয়ে আনজিল সারা এবং সারাফকে নিয়ে কীভাবে দিন কাটবে সেই চিন্তায়। এতিম দুই সন্তানের দায়িত্ব কে নেবে তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছেন মৃত সম্রাটের স্ত্রী এলমা আক্তার রিয়া।

তিনি বলেন, সম্রাট দুপুরে বাসায় এসে খেয়ে আবার দোকানে যান। পরে বিকেলে ঘটনার খবর পেয়ে সম্রাটকে ফোন করলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। পরে প্রথমে বাজারের সামনে ও পরে হাসপাতালে স্বামীর লাশ দেখতে পান তিনি। স্বামীর মৃত্যুর খবর শুনে অজ্ঞান হয়ে গেলে তাকে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। হাসপাতালের অনুমতি ছাড়া স্বামীর লাশ কিভাবে তার স্বজনরা বাড়িতে নিয়ে গেছে তা তিনি জানেন না।

কিন্তু স্বামীর লাশ দাফনের পরের দিন যখন শুনলেন নিহতদের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা করা হচ্ছে। এরপর তিনিও হাসপাতালে যান। কিন্তু স্বামীর কোনো ডেথ সার্টিফিকেট না থাকায় এতিম দুই সন্তানের এই মাকে কেউ সাহায্য করেনি। তাই এলমার অনুরোধ- সরকার যেন তার দুই এতিম শিশুর পাশে দাঁড়ায়।

নিহত সম্রাটের শাশুড়ি মর্জিনা বেগম জানান, এতিম দুই শিশুর আর্থিক সহায়তার জন্য তার মেয়ে শিশুকে কোলে নিয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন। কিন্তু কেউ সহযোগিতা করছে না। তাই তার মৃত্যু সনদ ও আর্থিক সহায়তা দেওয়ার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান তিনি।

 

এদিকে সম্রাটের না ফেরার দেশে যাওয়া এবং তার ডেথ সার্টিফিকেটের বিষয়ে কথা বলেছেন ডিএমপির লালবাগ বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মোঃ জাফর হোসেন। তিনি বলেন তদন্তের অপেক্ষায় নিহত সম্রাটের ডেথ সার্টিফিকেট পেতে পরিবারকে সহায়তা করা হবে। পাশাপাশি এতিম দুই শিশুর ভবিষ্যৎ যাতে নষ্ট না হয় সেদিকেও খেয়াল রাখা হবে।

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments