Sunday, February 5, 2023
বাড়িInternationalঅস্ট্রেলিয়ার নাগরিকদের জন্য রানীর গোপন চিঠি, পড়াতে অপেক্ষা করতে হবে আরো ৬৩...

অস্ট্রেলিয়ার নাগরিকদের জন্য রানীর গোপন চিঠি, পড়াতে অপেক্ষা করতে হবে আরো ৬৩ বছর

Ads

গত বৃহস্পতিবার না ফেরার দেশে ক্লে গিয়েছেন ইংল্যান্ড এর রানী দ্বিতীয় এলিজাবে। ৯৬ বছর বয়সে তিনি শেষ নিস্সাস ত্যাগ করে। সারা বিশ্ব তার এই না ফেরার দেশে যাওয়াতে শোকে স্তব্ধ ,জীবদ্দশায় তিনি তার কর্মকান্ডে কিকি করেছেন এবং তার ব্যাক্তিগত জিইবনে কিকি বিষয় গোপনীয় ছিল তা সামনে আসতে শুরু করেছে তার মৃত্যুর প।

রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের নিজের হাতে লেখা একটি বার্তা। যেটি লুকিয়ে আছে বিখ্যাত এক ভবনের এর ভিতরে। কিন্তু এই বার্তা পড়তে হলে অপেক্ষা করতে হবে আরো ৬৩ বছর!

১৯৮৬ সালের নভেম্বরে রানি এলিজাবেথ অস্ট্রেলিয়ার সিডনির নাগরিকদের জন্য একটি রহস্যময় চিঠির লিখে গেছেন। এটিকে সিল করে রাখার নির্দেশ দেওয়া আছে।

শুধুমাত্র ভবিষ্যতের মেয়রকে ২০৮৫ সালে এটি খুলতে দেওয়া হবে।

বর্তমানে বার্তাটি সিডনির সিবিডিতে অবস্থিত কুইন ভিক্টোরিয়া ভবনের একটি কাঁচের কেসের মধ্যে রাখা হয়েছে। কেউ জানে না তাতে কী লেখা আছে। এমনকি তার ব্যক্তিগত কর্মীরাও জানেন না। সিডনির নাগরিকরাও না। বাইরে থেকে খামের ওপরের লেখাটুকু শুধু পড়া যায়। তাতে লিখা আছে, প্রাপক, রাইট এবং মাননীয় লর্ড মেয়র সিডনি, অস্ট্রেলিয়া।

‘শুভেচ্ছা, ২০৮৫ খ্রিস্টাব্দে আপনার নির্বাচিত একটি উপযুক্ত দিনে আপনি কি দয়া করে এই খামটি খুলবেন এবং সিডনির নাগরিকদের কাছে আমার বার্তা পৌঁছে দেবেন। ’

 

চিঠিতে তিনি স্বাক্ষরও করেছেন ‘এলিজাবেথ আর’। ঠিক যেভাবে তিনি তাঁর ইনস্টাগ্রামে লেখা বার্তাগুলিতে স্বাক্ষর করতেন।

রানি এলিজাবেথের লেখা চিঠিটি যখন খোলা হবে তখন চিঠিটি লেখার প্রায় ১০০ বছর পার হয়ে যাবে। তাই আমরা শুধু কল্পনাতেই ভাবতে পারি চিঠিতে আসলে কী গোপন বার্তা আছে।

উল্লেখ্য, রানী এলিজাবেথ না ফেরার দেশে যাওয়ার পর থেকে একের পর এক খবর আসছে সামাজিক জোগাজোগ মাধ্যম এবং গণমাধ্যমে সেই সাথে দেখা যাচ্ছে তার ক্ষমতাকালীন সময়ে লুকায়িত কিকি বিষয় ছিল সেগুলো এখন প্রকাশে আসছে এবং মানুষ এই বিষয় গুলো নিয়ে বিস্মিত হচ্ছে

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments