Sunday, February 5, 2023
বাড়িpoliticsবিএনপির সমাবেশে হঠাৎ র‌্যাবের হেলিকপ্টার

বিএনপির সমাবেশে হঠাৎ র‌্যাবের হেলিকপ্টার

Ads

বিএনপির সমাবেশ নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে বেশ আলোচনা তৈরী হয়েছে। মূলত ১০ ডিসেম্বরে বিএনপির থেকে সমাবেশের কথা সোনা যাচ্ছিলো এবং আজকের এই সমাবেশ নিয়ে বেশ মিশ্র প্রতিক্রিয়া রয়েছে সবার মধ্যে। এদিকে ঢাকায় বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) সমাবেশের ওপর দিয়ে র‌্যাবের একটি হেলিকপ্টার উড়তে দেখা গেছে। নিরাপত্তা জোরদার করতে হেলিকপ্টারের মাধ্যমে বিএনপির সভাস্থলে নজরদারি চলছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

র‌্যাব ছাড়তে বিএনপির সমাবেশ ঘিরে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ, আনসার, আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের নিয়মিত সদস্য এবং বিভিন্ন সংস্থার গোয়েন্দা সদস্যসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ৩০ হাজার সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। রাজধানী জুড়ে যে কোনো সহিংসতা ও ভাঙচুর প্রতিরোধের দায়িত্ব তাদের।

এদিকে শনিবার সকাল থেকে শুরু হওয়া গোলাপবাগের গণসমাবেশ থেকে সরকারবিরোধী আন্দোলনের ১০ দফা কর্মসূচি ঘোষণা করবে বিএনপি। দলের একাধিক সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে।

সূত্র জানায়, সবার মতামতের ভিত্তিতে দলটির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে গণআন্দোলনের ১০ দফা চূড়ান্ত করেছে বিএনপি। ভার্চুয়াল সভায় সভাপতিত্ব করেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারিক রহমান। বৈঠকে দাবিগুলো চূড়ান্ত করা হয়। একইসঙ্গে সরকারের বিরুদ্ধে সমমনা রাজনৈতিক দলগুলোকে দেখিয়ে খসড়া প্রস্তাব চূড়ান্ত করার সিদ্ধান্ত হয়।

সমাবেশ থেকে আওয়ামী লীগ সরকার উৎখাতের আন্দোলনে আগ্রহী সমমনা দলগুলোকে দাবি আদায়ে একমত ও দরবারে গণআন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানাবে দলটি। একটা আল্টিমেটাম থাকবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, বৈঠক থেকে গণআন্দোলনের ১০ দফা ঘোষণা করা হবে। গণতন্ত্র ফোরাম ও ২০ দলীয় জোটের শরিকদের সঙ্গে ঐকমত্য হয়েছে বলেও জানা গেছে।

বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, গণআন্দোলনের ১০ দফা হলো, সংসদ ভেঙে দেওয়া ও বর্তমান সরকারের পদত্যাগ; ১৯৯৬ সালে সংবিধানে সংযোজিত অনুচ্ছেদ ৫৮ -বা , কি এবং ড -এর আলোকে, একটি নির্দলীয় নির্বাচনী বা অন্তর্বর্তীকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠন; বর্তমান কমিশন বিলুপ্ত করে একটি স্বাধীন ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন; খালেদা জিয়াসহ সকল বিরোধী দলের নেতা, সাংবাদিক ও আলেমদের সাজা বাতিল এবং মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের পাশাপাশি নতুন মামলায় গ্রেপ্তার বন্ধ এবং সভা-সমাবেশে বাধা সৃষ্টি না করা; ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮ এবং বিশেষ ক্ষমতা আইন ১৯৭৪ সহ মৌলিক মানবাধিকার হরণকারী সমস্ত পুরানো আইন বাতিল করুন; বিদ্যুৎ, জ্বালানি, গ্যাস, পানিসহ সরকারি সেবা খাতের মূল্যবৃদ্ধির জনবিরোধী সিদ্ধান্ত বাতিল; সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম নিয়ে আসা; বিগত ১৫ বছরে, অর্থপাচার, ব্যাংকিং ও আর্থিক খাত, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত এবং শেয়ার বাজার সহ রাষ্ট্রের সকল ক্ষেত্রে সংঘটিত দুর্নীতি চিহ্নিত করার জন্য একটি কমিশন গঠন; নিখোঁজ সব নাগরিককে উদ্ধার, বিচারবহির্ভূত কর্মকান্ড মামলার দ্রুত বিচার, বাড়িঘর ভাঙচুর, ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপাসনালয় ও সম্পত্তি দখল এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, প্রশাসন ও বিচারব্যবস্থায় সরকারি হস্তক্ষেপ বন্ধ করে তাদের স্বাধীনভাবে কাজ করার সুযোগ দিতে হবে। .

এদিকে বিএনপির রাজনৈতিক সমাবেশ নিয়ে বেশ তোড়জোড় চলছে, মূলত তাদের সমাবেশ করতে অনুমতি না দেওয়া এবং ধরপাকড় সহ নানা বিষয় নিয়ে চলছে আলোচনা সমালোচনা। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ১০ দফা চূড়ান্ত করতে শুক্রবার গণতন্ত্র মঞ্চ ও ২০ দলীয় জোটের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন বিএনপি নেতারা। বৈঠকে বিএনপির দেওয়া গণআন্দোলনের দফা নিয়ে চূড়ান্ত উত্তপ্ত আলোচনা হয়। আজকের সমাবেশ থেকে ১৪৪ ধারা ঘোষণার বিষয়ে তাদের মতামত নেওয়া হয়।

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments