Tuesday, January 31, 2023
বাড়িInternationalরানির থেকে ধনী স্ত্রী, প্রকাশ্যে এল ব্রিটেনের ২২তম ধনী ঋষি সুনাকের সম্পদের...

রানির থেকে ধনী স্ত্রী, প্রকাশ্যে এল ব্রিটেনের ২২তম ধনী ঋষি সুনাকের সম্পদের পরিমান

Ads

দীর্ঘদিন থেকেই যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী কে হবেন তা নিয়ে বেশ আলোচনা ছিল তবে শেষমেশ একাধিক রেকর্ড গড়ে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী হলেন ঋষি সুনাক। প্রথম ভারতীয় বংশোদ্ভূত, অশ্বেতাঙ্গ, এশীয়, প্রথম হিন্দু নেতা, ১৮১২ সালের পর সর্বকনিষ্ঠ প্রধানমন্ত্রী এবং সবচেয়ে অল্প সময়ে প্রধানমন্ত্রী পদে পৌঁছানোর রেকর্ড গড়েছেন তিনি।

বরিস জনসন ব্রিটেনের কনজারভেটিভ পার্টির নেতৃত্বের দৌড় থেকে সরে এসেছেন, যার ফলশ্রুতিতে ভারতীয় বংশোদ্ভূত ঋষি সুনাক, যিনি ক্ষমতাসীন দলের এমপিদের সমর্থনের দিক থেকে অনেক এগিয়ে রয়েছেন, তিনি পরবর্তী ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হতে চলেছেন বলে আশা করা হচ্ছে। .

সে দেশের অন্যতম ধনী এই ঋষি সুনক। তিনি ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌড়ে নামার পর তার সম্পত্তির বিষয়টি আবারও আলোচনায় আসতে শুরু করেছে।

সানডে টাইমসের ধনী তালিকা অনুসারে, স্ত্রী অক্ষতা মূর্তি সহ ঋষি সুনাকের সম্মিলিত সম্পদের পরিমাণ ৭৩০ মিলিয়ন পাউন্ড। গত মে মাসে তিনি ব্রিটেনের ২২তম ধনী ব্যক্তি হিসেবে তালিকাভুক্ত হন।

এদিকে, এ বছর মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, ঋষি সুনাকের স্ত্রী রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের চেয়ে ধনী। ২০২১ সানডে টাইমসের ধনী তালিকা অনুসারে, তার স্ত্রীর ব্যক্তিগত ভাগ্য ছিল ৩৫০ মিলিয়ন পাউন্ড। ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৪২ বছর বয়সী অক্ষতা মূর্তি একজন ভারতীয় নাগরিক। তিনি তার বাবা নারায়ণ মূর্তির কোম্পানি ইনফোসিস লিমিটেডের মাধ্যমে বিপুল সম্পদ অর্জন করেন।

লিজ ট্রাস বরিস জনসনের স্থলাভিষিক্ত হন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মাত্র ছয় সপ্তাহ আগে সেপ্টেম্বরে, ঋষি সুনাককে পরাজিত করেন কনজারভেটিভ পার্টির নেতৃত্বের দৌড়ে। একাধিক কেলেঙ্কারির পর চাপের মুখে পদত্যাগ করতে বাধ্য হন জনসন। কিন্তু ট্রাস ক্ষমতায়ও বেশিদিন টিকে থাকতে পারেননি, ব্রিটিশ ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘ মেয়াদী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ৪৫ দিন পর পদত্যাগ করতে বাধ্য হন।

এরপর পরবর্তী ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে উঠে আসে সুনাকের নাম। আবারও প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন বরিস জনসন। কিন্তু জনসনের রেস থেকে প্রত্যাহার সম্ভবত তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ৪২ বছর বয়সী সুনাককে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পথ প্রশস্ত করে, ট্রাসের বদলি সোমবারের মধ্যেই চূড়ান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

কঠোর নিয়মের অধীনে, শুধুমাত্র প্রার্থী যারা সোমবার লন্ডনের সময় দুপুর ২ টার মধ্যে ১০০ জন কনজারভেটিভ আইন প্রণেতাদের সমর্থন নিশ্চিত করতে পারবেন তারাই দলের নেতৃত্বের প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য বৈধ প্রার্থী হিসাবে বিবেচিত হবে।

শুধুমাত্র একজন প্রার্থী এই মাইলফলক অর্জন করতে পারলে সোমবার পরবর্তী ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তার নাম ঘোষণা করা হবে।

আর যদি দুইজন প্রার্থী সেই সীমা অতিক্রম করেন, তাহলে দলের সদস্যদের ভোটে তাদের একজন দলীয় নেতা নির্বাচিত হবেন। শুক্রবার ফলাফল ঘোষণা করা হবে এবং কনজারভেটিভ পার্টির নতুন নেতা হবেন পরবর্তী ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী।

উল্লেখ্য, এর আগে দেশটিতে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আসেন লিজ ট্র্যাশ, তবে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দেড় মাসের মধ্যেই তিনি পদত্যাগ করেন। এর পর নতুন করে শুরু হয় প্রধানমন্ত্রী কে হচ্ছেন তা নিয়ে আলোচনা।

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments