Monday, January 30, 2023
বাড়িlaw/courtমামলার চার্জশিটে এমপিসহ সরকারের প্রভাবশালীদের নাম, পারলে এখন সরকারকেই ঘায়েল করে বসে

মামলার চার্জশিটে এমপিসহ সরকারের প্রভাবশালীদের নাম, পারলে এখন সরকারকেই ঘায়েল করে বসে

Ads

সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করে এবং এর পরপরই শুদ্ধি অভিযান শুরু হয়েছিল এবং কাসিনকাণ্ডে অনেক ক্ষমতাসীনদের নাম বেরিয়ে এসেছিল তবে বিচারের অপেক্ষায় থমকে গেছে সরকারের ক্যাসিনোবিরোধী সেই শুদ্ধি অভিযান। অভিযান কেবল ভণ্ডুল নয়, পারলে সরকারকেই ঘায়েল করে বসে। মুখ থুবড়ে পড়ে আছে ৫৫ মামলার বিচার। র‌্যাব-সিআইডি অধিকাংশ মামলার তদন্ত শেষ করলেও ধীরগতি দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

এই সুযোগে জামিনে বেরিয়ে পড়ছে আসামিরা। স্বাক্ষীর অভাবের দোহাই দিচ্ছে রাষ্ট্রপক্ষ। দুদক বলছে, সময় লাগা স্বাভাবিক। আলোচিত আসামিরা ছাড় পেলে অপরাধীদের সাহস বাড়বে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের ৩ বছর পার হলেও ঢাকার চারটি ক্লাবে ক্যাসিনো ব্যবসার হোতা হিসেবে নাম আসা ব্যক্তিরা ধারাছোঁয়ার বাইরে। এসব ক্লাবের নিয়মিত চাঁদাখোররাও অধরা।

২০১৯ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে পরের বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলে ক্যাসিনোবিরোধী অ্যাকশন। ওই শুদ্ধি অভিযানের সময় মন্ত্রী-এমপি-নেতাসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হুঙ্কার ছিল- জড়িত কাউকে ছাড়া হবে না। খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ধরা হবে নেপথ্য হোতাদেরও।

ক্যাসিনো, ঘুষ, চাঁদাবাজি ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ এমন কি কৃষক লীগ নেতা ও ঢাকার বিভিন্ন ওয়ার্ডের জনপ্রতিনিধিসহ ১৪ প্রভাবশালীকে পাকড়াও করা হয় শুদ্ধি অভিযানে। মামলার প্রাথমিক তদন্তে পাওয়া পিলে চমকানো তথ্য রূপকথাকেও হার মানায়। তখন ক্ষমতাসীন দলেও শুদ্ধি অভিযানের আওয়াজ ওঠে। পদ খোয়াতে হয় কয়েকজনকে।

এক পর্যায়ে রহস্যজনকভাবে থমকে যায় অভিযান। জট পাকে বিচার কার্যক্রমে। র‌্যাব, সিআইডি, গোয়েন্দা পুলিশ ও দুদকের তদন্তে দেখা গেছে, ক্যাসিনোর মাধ্যমে হাতানো অর্থ পাচার হয়েছে বিভিন্ন দেশে। সাফল্য আসেনি অর্থের পরিমাণ জানা ও ফেরত আনার চেষ্টায়।

সবদিকের ঢিলেঢালা পরিস্থিতিতে একে একে জামিনে বেরিয়ে আসছে ক্যাসিনোর হোতারা। কেউ আবার জামিনে বেরিয়ে করেছে শোডাউনও। এদের বিরুদ্ধে রয়েছে-অবৈধ অস্ত্র, মাদক, অর্থ পাচার, অবৈধপত্রে অর্থ উপারজনসহ বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলা। এ নিয়ে চলছে নানা সমালোচনা।

চিহ্নিতদের এভাবে ছাড়া পাওয়া ও আস্ফালন তদন্তে প্রভাব ফেলবে বলে মন্তব্য বিশেষজ্ঞদের।

তবে, আইনজীবী ও চাঞ্চল্যকর শুদ্ধি অভিযান চালানো সংস্থার সদস্যরা বলছেন, এটি আদালতের বিষয়। এদিকে, ক্যাসিনো অভিযানের পর পর্যায়ক্রমে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের কয়েক ডজন কর্মকর্তাকে ডেকে পাঠানো হয় দুদক কার্যালয়ে। জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় অর্থের বিনিময়ে টেন্ডার পাইয়ে দেয়ার বিষয়ে।

জিজ্ঞাসাবাদের পরে বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়। তখন ২৪ ব্যক্তির বিরুদ্ধে ২৫টি মামলা দায়ের করে দুদক। জব্দ করে ৫৮২ কোটি টাকা।

প্রসঙ্গত, সরকারের ঘটনা করে চালানো শুদ্ধি অভিযানের কোনো কোনো স্বাক্ষীর ঠিকানা ভুল হওয়ায় খোঁজ মিলছে না। এ কারণে বিচার বিলম্বের অজুহাত রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীর। এদিকে, ক্যাসিনোকাণ্ডে আদালতে দাখিল করা তদন্তকারী সংস্থার চার্জশিটে রয়েছে এমপিসহ সরকারের প্রভাবশালী অনেকের নামও।

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments