Tuesday, December 6, 2022
বাড়িConutrywideএবার প্রকাশ্যে এল ভিডিও, জানা গেল কিভাবে ফরিদপুর গিয়েছিলেন রহিমা বেগম (ভিডিও)

এবার প্রকাশ্যে এল ভিডিও, জানা গেল কিভাবে ফরিদপুর গিয়েছিলেন রহিমা বেগম (ভিডিও)

Ads

গত্যকাল থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক একটি খবর নিয়ে বেশ আলোচনা সমালোচনা চলছে এবং এই ঘটনা যেন নাটকীয় রূপ নিলো, টানা ২৮ দিন নিখোঁজ থাকার পর অবশেষে শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) ফরিদপুরের বোয়ালমারী থেকে উদ্ধার করা হয়েছে খুলনার রহিমা বেগমকে। প্রশ্ন হলো খুলনা থেকে কোন পথে ফরিদপুরে গিয়েছেন তিনি।

বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যে দেশজুড়ে জনমনে কৌতূহল সৃষ্টি হয়েছে। এখন প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে কি করে তিনি ফরিদপুর গেছেন?

উদ্ধারের পর থেকে রহিমা বেগম পুলিশের কোনো প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছেন না। তিনি ‘নির্বাক’ রয়েছেন বলে জানিয়েছেন পুলিশ। শনিবার রাত ২টার দিকে রহিমা বেগমকে দৌলতপুর থানায় নিয়ে আসা হয়। বর্তমানে তাকে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখা হয়েছে।

খুলনা মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (উত্তর) মোল্লা জাহাঙ্গীর হোসেন প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারেন রহিমা বেগম ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার সৈয়দপুর গ্রামের কুদ্দুস মোল্লার বাড়িতে রয়েছেন। এরপর দৌলতপুর জোনের অতিরিক্ত উপকমিশনার আবদুর রহমান ও দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল রাত সেখানে গিয়ে দেখতে পায়, রহিমা বেগম ওই বাড়িতে বসে দুজন নারীর সঙ্গে গল্প করছেন। তবে বাড়ির মালিক কুদ্দুস বাড়িতে ছিলেন না।

মোল্লা জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, রহিমা বেগম কোনো প্রশ্নের উত্তর দেননি। পরে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কুদ্দুসের ছেলে আলামিন, কুদ্দুসের স্ত্রী ও ভাইয়ের স্ত্রীকে হেফাজতে নেওয়া হয়। তারা জানায়, রহিমা তাদের জানিয়েছেন, তিনি বেশ কয়েক দিন চট্টগ্রাম ও গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে ছিলেন। এরপর ১৭ সেপ্টেম্বর বোয়ালমারীতে কুদ্দুসের বাড়িতে যান। তখন তার একটি ব্যাগে দুই প্যাকেট বিস্কুট, কিছু কাগজপত্র ও পরনের কিছু কাপড়চোপড় ছিল।

এ ঘটনায় রহিমার মেয়ে মরিয়ম মান্নান মায়ের সন্ধানে থানায় মামলাসহ সংবাদমাধ্যমে বিবৃতি, মানববন্ধন ও বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংস্থার কাছে ধরনা দিচ্ছিলেন। মরিয়মের করা মামলায় জেলেও যেতে হয়েছে ছয়জনকে।

এদিকে, ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলায় দাফন হওয়া এক নারীর লাশ নিজের মায়ের বলে দাবি করেছিলেন খুলনার দৌলতপুরের মরিয়ম মান্নান। শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টার দিকে ফুলপুর থানায় গিয়ে উদ্ধারকৃত নারীর পোশাক ও সংরক্ষিত আলামত দেখে এমন দাবি করেন তিনি। তার এমন দাবির একদিন পরই নিখোঁজ রহিমা খাতুনকে (৫২) জীবিত অবস্থায় ফরিদপুরের বোয়ালমারী ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামের কুদ্দুস মোল্লার বাড়ি থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় আটকৃতদের পরিবারের সদস্যদের দাবি, জমি-সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে পরিকল্পিতভাবে আত্মগোপন করেছিলেন রহিমা বেগম। বিষয়টি জানতেন তার মেয়ে মরিয়ম মান্নানসহ পরিবারের সদস্যরাও।

রহিমাকে উদ্ধারের পর এ মামলায় আটক রফিকুল আলম পলাশ ও নুরুল আলম জুয়েলের বাবা আনসার উদ্দিন আহমেদ বলেন, তার ছোট ছেলে রফিকুল আলম পলাশ চাকরি করে এবং বড় ছেলে নুরুল আলম জুয়েল মুদি দোকানি। তার দুই ছেলেকে রহিমাকে কথিত অপহরণের মামলায় ফাঁসানোর চেষ্টা করা হয়েছে। তারা হয়রানির শিকার হয়েছেন। তিনি বলেন, তাদের সঙ্গে জমির সীমানা নিয়ে মতবিরোধ থাকায় মামলা দিয়ে হয়রানি ও সম্মানহানি করা হয়েছে।

এ মামলায় আটক মহিউদ্দিন ও গোলাম কিবরিয়ার বড় ভাই নজরুল ইসলাম বলেন, মরিয়ম মান্নান নাটকবাজ। পুলিশ ও সাংবাদিকদের মিথ্যা কথা বলে প্রায় এক মাস বিভ্রান্ত করেছে। ময়মনসিংহে গিয়েও মরিয়ম নাটক সাজায়। তিনি আটককৃতদের মুক্তি এবং রহিমা বেগম ও তার পরিবারের সদস্যদের শাস্তির দাবি করেন।

এ মামলায় আটক হেলাল শরীফের মেয়ে নবম শ্রেণির ছাত্রী আন্তারা ফাহমিদা বলেন, তার বাবা কোনো অপরাধ করেনি, অথচ তারপরও তাকে জেল খাটতে হচ্ছে। তাদের পরিবারের সদস্যরা নানান কটূক্তির শিকার হয়েছে।

বোয়ালমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল ওয়াহাব জানান, শনিবার রাত ১১টার দিকে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের (কেএমপি) একটি দল বোয়ালমারী পৌরসভাধীন সৈয়দপুর গ্রামের কুদ্দুস মোল্লার বাড়ি থেকে রহিমা বেগমকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করেছেন। পরে রাতেই খুলনার পুলিশ রহিমাকে নিয়ে খুলনা উদ্দেশে রওয়ানা হয়েছেন। এর বেশি কিছু তাৎক্ষণিকভাবে জানানো সম্ভব নয়।

এ বিষয়ে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো.মাসুদুর রহমান ভূঞা বলেন, শনিবার রাতে রহিমা বেগমকে উদ্ধার করা হয়। তিনি স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে ছিলেন।

উল্লেখ্যঃ গত ২৭ আগস্ট রাত আনুমানিক ১০টার দিকে খুলনা মহানগরীর মহেশ্বরপাশার উত্তর বণিকপাড়ার নিজ বাসা থেকে টিউবওয়েলে পানি আনতে নিয়ে নিখোঁজ হন রহিমা। পরে আর ঘরে ফেরেননি তিনি। অন্যদিকে স্বামী ও ভাড়াটিয়ারা নলকূপের পাশে ঝোপঝাড়ে তার ব্যবহৃত ওড়না, স্যান্ডেল ও বালতি দেখতে পান। এ সময় একই দিন রাতে মাকে খুঁজতে আত্মীয়-স্বজন, আশপাশসহ সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজ করেন সন্তানরা।

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments