Sunday, February 5, 2023
বাড়িInternationalএবার ৭০ ব্যক্তির ওপর মার্কিন যুক্তরাষ্টের নিষেধাজ্ঞা

এবার ৭০ ব্যক্তির ওপর মার্কিন যুক্তরাষ্টের নিষেধাজ্ঞা

Ads

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিভিন্ন দেশের উপর নিষেধাজ্ঞা দিয়ে থাকে। মানবধিকার লঙ্ঘন দুর্নীতি সহ নেতিবাচক কর্মকান্ডের জন্য এবারেও যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য বিশ্বের বিভিন্ন ক্ষেত্রে ৭০টির বেশি ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। তাদের মধ্যে চীন, রাশিয়া, ইরান ও মিয়ানমারের কর্মকর্তারা রয়েছেন।

আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস এবং বিশ্ব মানবাধিকার দিবসের আগে আন্তর্জাতিক অংশীদারদের সমন্বয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্য সরকার পৃথকভাবে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি বিভাগ শুক্রবার রাতে এক বিজ্ঞপ্তিতে দুর্নীতি ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে ৯ টি দেশের ৪০ টিরও বেশি ব্যক্তি ও সংস্থার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দিয়েছে।

নিষিদ্ধ ব্যক্তি ও সংস্থাগুলি মূলত ইরান, মিয়ানমার, রাশিয়া, চীন, গুয়াতেমালা, লাইবেরিয়া, বেলারুশ, উত্তর কোরিয়া এবং পশ্চিম বলকান অঞ্চলের। তাদের মধ্যে উত্তর কোরিয়া-সম্পর্কিত নিষেধাজ্ঞায় ভারত ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ফানসাগা পিটিই লিমিটেডের পরিচালক দীপক যাদবের নাম রয়েছে।

এর আগে গতকাল সন্ধ্যায় যুক্তরাজ্য সরকার ৩০ বিদেশির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। ব্রিটিশ সরকার বলেছে যে নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকা ব্যক্তিরা বন্দীদের নি*র্যা*ত*ন সহ সেনা মোতায়েন করে বেসামরিক নাগরিকদের ধ*র্ষ*ণে*র মতো কার্যকলাপে জড়িত। মিয়া আবদুল হক নামে একজন পাকিস্তানিও ব্রিটিশ সরকারের নিষেধাজ্ঞার তালিকায় রয়েছেন। তিনি অমুসলিমদের জোরপূর্বক ধর্মান্তরিত করা এবং নাবালিকাদের বিয়েতে জড়িত।

যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র সচিব জেমস ক্লেভারলি এক বিবৃতিতে বলেছেন, “আমাদের নিষেধাজ্ঞাগুলি এই জঘন্য অন্যায়ের পিছনে থাকা লোকদের প্রকাশ করে।” ‘

নিষেধাজ্ঞার বিষয়গুলির মধ্যে রাশিয়ান কর্নেল রামিল রাখমাতুলোভিচ ইবাতুলিন রয়েছেন, যিনি ইউক্রেনে হামলায় অংশ নিয়েছিলেন।

ইরানের কারাগার কর্তৃপক্ষের ১০ জন কর্মকর্তা যুক্তরাজ্যের নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়েছেন। এদের মধ্যে বিপ্লবী আদালতের সঙ্গে যুক্ত ছয়জন, যারা প্রতিবাদকারীদের সাজা দেওয়ার সঙ্গে জড়িত।

মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর সঙ্গে যুক্ত কয়েকজনকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। যুক্তরাজ্য বলছে, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী গ*ণ*হ*ত্যা, নি*র্যা*ত*ন ও ধ*র্ষ*ণে*র সঙ্গে জড়িত।

মিয়ানমারের সামরিক প্রধানের কার্যালয় ও নিরাপত্তা বিষয়কও নিষেধাজ্ঞার আওতায় রয়েছে বলে জানা গেছে। যুক্তরাজ্য বলেছে যে তারা গত বছরের সামরিক অভ্যুত্থানের পরের নি*র্যা*ত*নে*র সাথে জড়িত। এসব নি*র্যা*ত*নে*র মধ্যে রয়েছে ধ*র্ষ*ণ ও যৌ*ন স*হিংসতা।

আলাদাভাবে, যুক্তরাজ্য তার বৈশ্বিক মানবাধিকার ও গণতন্ত্রের বার্ষিক পর্যালোচনায় বলেছে যে উইঘুর মুসলিম প্রশ্নে চীনের অবস্থান গত এক বছরে খারাপ হয়েছে। উইঘুর মুসলিমদের সঙ্গে ‘ভয়াবহ নি*পী*ড়*ন*মূ*ল*ক’ আচরণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments