Monday, January 30, 2023
বাড়িNational১৭১ জন প্রধানমন্ত্রীর সফর সঙ্গী হতে পারলেও কেন পারলেন না মোমেন, এর...

১৭১ জন প্রধানমন্ত্রীর সফর সঙ্গী হতে পারলেও কেন পারলেন না মোমেন, এর পেছনে কারন একটাই

Ads

গতকাল চার দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে দিল্লি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে যাওয়ার আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন তাকে সঙ্গ দিতে পারেননি। এক সরকারি কর্মকর্তার বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা ইউএনবি এ তথ্য জানিয়েছে।

এদিকে একটি সরকারি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, “তিনি (পররাষ্ট্রমন্ত্রী) অসুস্থ বোধ করায় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সফরে যাচ্ছেন না।”

এর আগে ১৮ আগস্ট এক অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল মোমেন বলেছিলেন, ‘আমি ভারতে গিয়ে বলেছি শেখ হাসিনাকে টিকিয়ে রাখতে হবে। শেখ হাসিনা আমাদের রোল মডেল। তাকে টিকিয়ে রাখতে পারলে আমাদের দেশ উন্নয়নের দিকে যাবে এবং সত্যিকার অর্থে সাম্প্রদায়িক, অসাম্প্রদায়িক দেশে পরিণত হবে।

“শেখ হাসিনার সরকারকে টিকিয়ে রাখার জন্য যা যা করা দরকার তা করার জন্য আমি ভারত সরকারকে অনুরোধ করেছি।”

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এই মন্তব্যে আলোচনার ঝড় ওঠে।

পরে এক প্রতিক্রিয়ায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, তার বক্তব্য ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের দুদিন পর আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আবদুর রহমান বলেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী আওয়ামী লীগের সদস্য নন।

এদিকে, তিন বছর পর গতকাল চার দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ভারতের রাজধানী দিল্লি গেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তাকে বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ভিভিআইপি ফ্লাইটটি স্থানীয় সময় দুপুর ১২টায় দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছায়।

সোমবার (৫ সেপ্টেম্বর) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় বার্তা সংস্থা এএনআই।

প্রধানমন্ত্রীর চার দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে বাণিজ্য, জ্বালানি, অভিন্ন নদীর পানি বণ্টন এবং রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে সহযোগিতার বিষয়গুলো আলোচ্যসূচিতে থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে। দুই দেশের মধ্যে প্রতিরক্ষা সহযোগিতা আরও বাড়ানো, আঞ্চলিক সংযোগ উদ্যোগ সম্প্রসারিত করা এবং দক্ষিণ এশিয়ায় স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠা করাও সফরের আলোচ্যসূচিতে রয়েছে জানিয়েছে এএনআই ।

বার্তা সংস্থা বলছে, করোনা মহামারী শুরুর পর প্রথমবারের মতো ভারত সফর করছেন শেখ হাসিনা। সফরকালে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ভারতের রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট জগদীপ ধনখারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গেও দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করবেন তিনি।

এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। সফরকালে শেখ হাসিনার আজমির শরীফও যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া, প্রধানমন্ত্রী ৮ সেপ্টেম্বর ঢাকায় ফেরার আগে ভারত সফরের প্রথম দিন সোমবার রাজস্থানের খাজা গরীব নওয়াজ দরগাহ শরীফ, আজমির (আজমির শরীফ) এবং দিল্লিতে নিজামুদ্দিন আউলিয়া দরগাহ পরিদর্শন করবেন।

এ দিকে প্রধানমন্ত্রীর এই সফরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী যেতে না পারলেও সুযোগ পেয়েছেন অনেকেই। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী, বাণিজ্যমন্ত্রী, রেলপথমন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর অর্থনীতিবিষয়ক উপদেষ্টা এবং বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগবিষয়ক উপদেষ্টা, বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী, পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীসহ মোট ১৭১ জন। জানা গেছে তারা সকলেই বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় আলোচনা ও অনুষ্ঠানে যোগদান করবেন। বাংলাদেশের মত প্রধানমন্ত্রীর এ সফর ঘিরে ঢাকার মতো বিপুল প্রত্যাশা তৈরি হয়েছে ভারতেও। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পরবর্তী বিশ্ব পরিস্থিতিতে রাজনৈতিক, সামরিক, অর্থনৈতিক স্বার্থ ও বাংলাদেশের আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন শেখ হাসিনার এ সফরকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ করে তুলেছে।

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments