Saturday, February 4, 2023
বাড়িNationalকোনো পরীক্ষা ছাড়াই, রাতারাতি নির্বাচন কর্মকর্তা হয়েছিলো ৩০০ নেতা: জয়

কোনো পরীক্ষা ছাড়াই, রাতারাতি নির্বাচন কর্মকর্তা হয়েছিলো ৩০০ নেতা: জয়

Ads

এবার বিএনপি জামাতের আমলে নির্বাচন নিয়ে কথা বললেন প্রধানমন্ত্রীর পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়। জোট সরকার এর আমলে ছাত্রদল নেতাকর্মীকে কোন প্রকার প্রশিক্ষণ না দিয়ে নির্বাচনী কর্মকর্তা বানানো হয়েছিল বলেছেন তিনি এছাড়াও বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে দেশের ভয়াবহ পরিস্থিতি ও বিভিন্ন ঘটনার বিস্তারিত তুলে ধরেন। তিনি তার ভেরিফায়েড ফেসবুকে একটি ভিডিও পোস্ট করে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন।

সজীব ওয়াজেদ জয়ের পোস্ট করা ভিডিওটির স্ক্রিপ্ট এবার পাঠকদের জন্য প্রকাশ করা হলো-

২২ শে জানুয়ারী, ২০০৭ -এ, তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার কারচুপির নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় ফিরে আসতে চেয়েছিল। এ সময় তিন শতাধিক ছাত্রদল নেতাকর্মীকে কোনো পরীক্ষা না নিয়েই জরুরি ভিত্তিতে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়।

বাংলাদেশের ইতিহাসে পিএসসি ব্যবহার করে এত দ্রুত নিয়োগ আর আগে হয়নি। এর মাধ্যমে খালেদা জিয়ার সরকার সরকারি চাকরিতে নিয়োগ প্রক্রিয়াকে কলঙ্কিত করেছে।

হাওয়া ভবন থেকে বিএনপি চেয়ারপারসনের ছেলে তারেক রহমানের সরাসরি নির্দেশে ৪ সেপ্টেম্বর ২০০৬ পিএসসির মাধ্যমে এই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ২৬ ফেব্রুয়ারি নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। তবে ১/১১ এর প্রেক্ষাপট পরিবর্তনের পর ২০০৭ সালের ১৩ জানুয়ারি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টারা বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেন। ২০০৭ সালের ১৮ জানুয়ারির প্রথম আলো পত্রিকা এ বিষয়ে বিস্তারিত খবর প্রকাশ করে।

জানা গেছে, নিজেদের মতো করে নির্বাচন আয়োজনের লক্ষ্যে এই তিনশ’ ছাত্রদল নেতাকে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ৬০ জন ছাত্রদল নেতাকর্মী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১০ জন ছাত্রদল নেতা এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১২ জন ছাত্রদল নেতাকর্মীকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বগুড়ার ১৫ ছাত্রদল নেতাকেও এই পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নিয়োগ পাওয়া ছাত্রদল নেতাদের মধ্যে রয়েছেন সাবেক ছাত্রদল নেতা মমিন সরকার, আবদুল গাফফার, মনিরুজ্জামান ও দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ আহমেদ সাইক্লোন, শহীদুল্লাহ হল, ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম রকিব, সহ-সভাপতি সাজিউল ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক ফজলুল করিম ও সাবেক ছাত্রদল নেতা মো. সদস্য আব্দুল হান্নান ও হাবিবুর রহমান, জসিমউদ্দিন হল ছাত্রদলের সাবেক সহ-সভাপতি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ও জাসা সদস্য সচিব জাহিদুর রহমান, সমাজবিজ্ঞান ও গবেষণা ইনস্টিটিউট ছাত্রদলের সহ-সভাপতি সেকান্দার আলী, শাহীন আকন্দ, ছাত্রদলের সাবেক সহ-সভাপতি মো. জিয়া হল শাখার যুগ্ম সম্পাদক নাজিম উদ্দিন ভূইয়া, জহুরুল হক হলের সাবেক সভাপতি শফিকুল ইসলাম, সূর্যসেন হলের সাবেক সহ-সভাপতি প্রমুখ।

এছাড়াও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদলের বিভিন্ন হল শাখার নেতাকর্মীদের মধ্যে রয়েছেন মেজবাহ উদ্দিন, মনির হোসেন, কাজী মোহাম্মদ নূরে আলম, মুহাম্মদ ফজলুর রহমান, ওয়াহিদুজ্জামান মুন্সী টিপু, নজির আহমদ সীমাব, মুহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, রশিদ মিয়া সাগর, মনিরুজ্জামান, আব্দুল মান্নান। গাফফার, মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান। .

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয় বর্তমানে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য বিষয়ক উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করছেন তবে তাকে ঘিরে রাজনৈতিক পাড়ায় নানা কথা শোনা যায়। কিন্তু তিনি রাজনীতিতে আসছেন কিনা সে বেপারে এখনো কেউ নিশ্চিত নন।

Looks like you have blocked notifications!
Ads
[json_importer]
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

Most Popular

Recent Comments